ভাষাশহীদদের স্মরণে একসঙ্গে জ্বললো ১ লাখ মোমবাতি

প্রকাশিত: ১২:৪৯ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২৪

জেলা প্রতিনিধি,নড়াইলঃ 

‘অন্ধকার থেকে মুক্ত করুক একুশের আলো’ এই প্রতিপাদ্য সামনে রেখে নড়াইলে লাখো মোমবাতি প্রজ্বালন করা হয়েছে। এভাবেই ভাষাশহীদদের স্মরণ করা হয়েছে। ব্যতিক্রমী আয়োজনে বুধবার সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজের মাঠে (কুড়িরডোব মাঠ) এক লাখ মোমবাতি একসঙ্গে জ্বলে ওঠে।সরেজমিনে দেখা গেছে, এই আয়োজন ঘিরে নারী-শিশুসহ হাজার হাজার মানুষ উপস্থিত হয়েছেন। মোমবাতি প্রজ্বালনের সঙ্গে সঙ্গে মঞ্চে শিল্পীরা গেয়ে ওঠেন একুশের গান, ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি।’

এরপর একে একে পরিবেশন করা হয় দেশাত্মবোধক গান ও গণসংগীত। মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে প্রায় চার একর খেলার মাঠজুড়ে মোমবাতির শিখায় তৈরি করা হয় নানা আলপনা। বঙ্গবন্ধু ও ভাষাশহীদদের প্রতিকৃতি, বর্ণমালা, শহীদ মিনার, স্মৃতিসৌধ, শাপলা ফুল, মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন স্মৃতিচিহ্ন এবং গ্রামবাংলার নানা কৃষ্টি ও ঐতিহ্য তুলে ধরা হয় মোমবাতির শিখায়।

এ সময় কলেজের মাঠে এক অপরূপ দৃশ্য তৈরি হয়। দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড়ে মাঠে তিল ধারণের ঠাঁই ছিল না। নান্দনিক এই আয়োজনের কারিগর একুশের আলো পর্ষদ।১৯৯৮ সাল থেকে কুড়িরডোব মাঠে মোমবাতি জ্বালিয়ে এমন কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে জানিয়ে পর্ষদের সাধারণ সম্পাদক কচি খন্দকার বলেন, শুরুতে ছোট পরিসরে আয়োজন করা হতো। গত কয়েক বছর বড় পরিসরে এই আয়োজন হয়ে আসছে। প্রতিটি মাতৃভাষা ও সংস্কৃতি আগ্রাসনমুক্ত থাকুক, আলোকিত থাকুক, এর প্রতীকী হিসেবে আমাদের এই কর্মসূচি।

লাখো মোমবাতি প্রজ্বালনের উদ্বোধন করেন নড়াইলের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আশফাকুল হক চৌধুরী, পুলিশ সুপার মেহেদী হাসান, নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজের অধ্যক্ষ শাহাব উদ্দিন, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নিজামউদ্দিন খান, নড়াইল পৌরসভার মেয়র আঞ্জুমান আরা, গোলাম মোর্তজা স্বপন, একুশের আলো পর্ষদের সাধারণ সম্পাদক কচি খন্দকার, নাট্যব্যক্তিত্ব মিলন কুমার ভট্টাচার্য, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক মো. শরফুল আলম লিটু প্রমুখ।

আয়োজনের অন্যতম উদ্যোক্তা মূর্ছনা সংগীত নিকেতনের সভাপতি ও একুশের আলো পর্ষদের কোষাধ্যক্ষ শামীমূল ইসলাম বলেন, ১৯৯৮ সাল থেকে কুড়িরডোব মাঠে মোমবাতি জ্বালিয়ে এমন কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে। প্রথম বছর জ্বালানো হয়েছিল ১০ হাজার মোমবাতি। এবার প্রজ্বালন করা হয়েছে প্রায় এক লাখ মোমবাতি।তিনি আরও বলেন, এবারের কর্মসূচি সফল করতে এক মাস ধরে সাংস্কৃতিক কর্মী, স্বেচ্ছাসেবক ও শ্রমিকরা নানাভাবে কাজ করছেন। বুধবার সারা দিনে প্রায় তিন হাজার স্বেচ্ছাসেবী মোমবাতি সাজিয়েছেন। এই মোমবাতির আলো পৃথিবীর সমস্ত ভাষা ও সংস্কৃতিকে আলোকিত করবে।

মোমবাতি প্রজ্বালন দেখতে আসা নড়াইল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থী ফারদিন শাহরিয়ার খান জানায়, লাখো মোমবাতি একসঙ্গে জ্বালিয়ে মাতৃভাষা দিবস পালন ও ভাষাশহীদদের স্মরণ করতে দেখে খুব ভালো লেগেছে।কয়েকজন নারী জানিয়েছেন, মূলত ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা এবং সন্তানদের মাতৃভাষা সম্পর্কে ধারণা দিতে এখানে নিয়ে এসেছি। বঙ্গবন্ধু, ভাষাশহীদদের প্রতিকৃতি, বর্ণমালা, শহীদ মিনার, স্মৃতিসৌধ, শাপলা ফুল দেখে কিছুটা হলেও ধারণা পেয়েছে সন্তানরা।