বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে বাণিজ্য বাড়াতে গুরুত্বারোপ

প্রকাশিত: ৬:২৬ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২৪

সেলিনা আক্তারঃ

বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে অর্থনৈতিক সম্পর্ক জোরদার করা এবং দুই দেশের বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বাড়াতে পণ্য বহুমুখীকরণ নিয়ে আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ সময় সম্ভাবনাময় খাত হিসেবে তথ্যপ্রযুক্তি, লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং, নবায়নযোগ্য জ্বালানি ও শিক্ষার বিষয় উল্লেখ করা হয়।বাংলাদেশের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব তপন কান্তি ঘোষ এবং অস্ট্রেলিয়ার বাণিজ্য ও বিনিয়োগবিষয়ক কমিশনের উপনির্বাহী প্রধান ফিলিপ্পা কিংয়ের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। দুই দেশের সম্পর্ক জোরদারে নানা বিষয় আলোচনায় উঠে আসে।

এর আগে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বাড়ানোর উদ্দেশ্যে সিনিয়র সচিব তপন কান্তি ঘোষ অস্ট্রেলিয়া সফর করেন। সেখানে তিনি ১১ থেকে ১৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত অবস্থান করেন।ক্যানবেরায় বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

বৈঠকে ফিলিপ্পা কিং উচ্চশিক্ষার বিকল্প মডেল হিসেবে অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে বংলাদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের অংশীদারত্ব বাড়ানোর ওপর জোর দেন। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে উচ্চশিক্ষা ছাড়াও কারিগরি শিক্ষা কার্যক্রমে অস্ট্রেলিয়ার সহযোগিতা চাওয়া হয়। দ্বিপক্ষীয় বিনিয়োগ বাড়াতে অস্ট্রেলিয়া-বাংলাদেশ যৌথভাবে বিনিয়োগ-সংক্রান্ত সেমিনার আয়োজনের বিষয়েও আলোচনা হয়।

সফরকালে তপন কান্তি ঘোষ অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্র ও বাণিজ্য দফতরের প্রথম সহকারী সচিব গ্যারি কাওয়ান, অস্ট্রেলিয়ান চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির বাণিজ্যবিষয়ক প্রধান ক্রিস বার্নস এবং সে দেশে বাংলাদেশ অস্ট্রেলিয়া চেম্বারের সদস্যদের সঙ্গে বৈঠক করেন।অস্ট্রেলিয়ার গ্যারি কাওয়ানের সঙ্গে বৈঠককালে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের পর স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার সুযোগ-সুবিধা বাংলাদেশে অব্যাহত রাখার বিষয়ে অস্ট্রেলিয়ার সমর্থন আশা করেন তপন কান্তি ঘোষ।

অস্ট্রেলিয়ার বাজারে বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশের সুবিধা অব্যাহত রাখার ক্ষেত্রে অস্ট্রেলিয়ার আশ্বাসের প্রশংসা করেন বাণিজ্য সচিব। এ ছাড়া অগামী মে মাসে অনুষ্ঠেয় জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের তৃতীয় সভায় ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট ফ্রেমওয়ার্ক অ্যারেঞ্জমেন্টকে পরবর্তী ধাপে উন্নয়নের জন্য করণীয় বিষয়ে আলোচনা হয়।বর্তমানে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য চার বিলিয়ন অস্ট্রেলিয়ান ডলারের বেশি। গত দশকে দুই দেশের বাণিজ্য ক্ষেত্রে বার্ষিক প্রবৃদ্ধির হার প্রায় ১১ শতাংশ। বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া প্রতিশ্রুতিশীল এই বাণিজ্যিক সম্পর্ক এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশ হাইকমিশন ব্যাপক উদ্যোগ নিয়েছে।