নির্বাচনের আগে কংগ্রেসের কোমর ভেঙে দিচ্ছে কর দপ্তর

প্রকাশিত: ১১:১১ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ৩০, ২০২৪

আন্তর্জাতিক ডেস্ক রিপোর্টঃ 

লোকসভা ভোটের আগে এমনিতেই অর্থ সংকটে ভুগছে ভারতের বিরোধী রাজনৈতিক দল কংগ্রেস। এর মাঝেই আয়কর দপ্তর নোটিশ দিয়েছে ১ হাজার ৮০০ কোটি রুপির। এতে কোমর ভেঙে যাওয়ার অবস্থা কংগ্রেসের। নতুন এই কর নোটিশকে ‘কর সন্ত্রাস’ বলছে দলটি।নতুন আয়কর দপ্তরের নোটিশ পেয়ে ক্ষমতাসীন ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযোগ তুলেছে দেশটির বিরোধী দল কংগ্রেস। শুক্রবার কংগ্রেসের কোষাধ্যক্ষ অজয় মাকেন সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন, বিজেপি আয়কর আইনের গুরুতর লঙ্ঘন করেছে। তাদের কাছে ৪ হাজার ৬০০ রুপি জরিমানা চেয়ে আয়কর নোটিশ পাঠানো উচিত।

এ সময় সাবেক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জয়রাম রমেশ জানান, কংগ্রেসের কাছে ১ হাজার ৮২৩ কোটি ৮ লাখ রুপি চেয়ে নোটিশ পাঠিয়েছে আয়কর দপ্তর। লোকসভা ভোটের আগে বিজেপি ‘কর সন্ত্রাস’ শুরু করেছে। তারা বিরোধীদের আর্থিকভাবে পঙ্গু করে দিতে চায়। অন্যদিকে রাহুল গান্ধী বলেছেন, যারা গণতন্ত্র ধ্বংস করেছে, সরকার পরিবর্তন হলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কংগ্রেস নেতারা জানিয়েছেন, ব্যাংক অ্যাকাউন্ট স্থগিত থাকায় ভোটের প্রচার চালানোর জন্য পর্যাপ্ত অর্থ নেই দলের কাছে।সংবাদ সম্মেলনে জয়রাম বলেন, আমরা এই নোটিশে ভয় পাব না। বিজেপির বিরুদ্ধে আরও প্রবলভাবে প্রচারে নামব। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দল নির্বাচনী বন্ডের মাধ্যমে ৮ হাজার ২০০ কোটি টাকা পেয়েছে। সুপ্রিম কোর্ট ওই বন্ডকে অসাংবিধানিক বলেছেন।আয়কর দপ্তরের একটি সূত্র জানিয়েছে, ২০১৭-১৮ থেকে ২০২০-২১ অর্থবছর পর্যন্ত আয়কর-সংক্রান্ত রিটার্ন পর্যালোচনা করেই কংগ্রেসের কাছে টাকা চেয়ে নোটিশ পাঠানো হয়েছে। বকেয়া কর, তার সুদ এবং জরিমানার অঙ্ক মিলিয়েই ওই বিপুল অঙ্কের টাকা চাওয়া হয়েছে।

১৩ মার্চ আয়কর আপিল ট্রাইব্যুনালের নির্দেশের বিরুদ্ধে কংগ্রেসের আবেদন খারিজ করে দেন দিল্লি হাইকোর্ট। এর পরই ধারাবাহিকভাবে পদক্ষেপ শুরু করেছে আয়কর দপ্তর। ওই নির্দেশের পর কংগ্রেসের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে চলতি মাসে ১৩৫ কোটি টাকা কেটে নেওয়া হয় বলে অভিযোগ করেছে দলটি।