জার্মানিতে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন কার্যকর, যা যা পাচ্ছেন অভিবাসীরা

প্রকাশিত: ৪:১০ অপরাহ্ণ, জুন ২৭, ২০২৪

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

দ্বৈত নাগরিকত্বের সুযোগ রেখে বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) কার্যকর হচ্ছে জার্মানির সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন। এর ফলে আরও বেশি মানুষ দেশটির নাগরিকত্ব অর্জনের সুযোগ পাবেন। এ আইন কার্যকর হলে আট বছরের পরিবর্তে পাঁচ বছর পার হলেই জার্মান নাগরিকত্ব চেয়ে আবেদন করতে পারবেন অভিবাসীরা।

জার্মানির মোট জনসংখ্যার অন্তত ১৪ শতাংশ অর্থাৎ এক কোটি ২০ লাখ মানুষের কাছে নেই দেশটির নাগরিকত্ব। অন্তত ৫ দশমিক ৩ শতাংশ মানুষ গত ১০ বছর ধরে জার্মানিতে বসবাস করছে। ফেডারেল সরকারের তথ্য অনুযায়ী, জার্মানিতে নাগরিকত্ব অর্জনের হার ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) গড়ের অর্ধেক।

আইনটির গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোর উপর দৃষ্টি দিয়েছে ইনফোমাইগ্রেন্টস। জার্মান স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, মূলত পাঁচটি বিষয়ে গুরুত্ব দিয়ে আইনটি সংস্কার করা হয়েছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে- নাগরিকত্ব অর্জনের প্রক্রিয়া গতিশীল করা, দ্বৈত নাগরিকত্বের সুযোগ রাখা, বিশেষ যোগ্যতাকে স্বীকৃতি দেওয়া, জন্মসূত্রে নাগরিকত্ব সহজ করা, ‘অতিথি কর্মীদের’ প্রজন্মকে আজীবন সম্মাননা দেওয়া, বেশি সংখ্যক অভিবাসীকে জার্মান নাগরিক হওয়ার সুযোগ দেওয়া।

আইনটি কার্যকর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে জার্মানিতে বসবাসরত বিদেশিরা আট বছরের পরিবর্তে পাঁচ বছর পরেই নাগরিকত্ব চেয়ে আবেদন করতে পারবেন। জার্মান নাগরিকের সঙ্গে কারো বিয়ে হলে, চার বছর পরেই তিনি নাগরিকত্ব চেয়ে আবেদনের সুযোগ পাবেন।

আবেদনকারীদের মধ্যে যারা জার্মান সমাজের মানিয়ে নেওয়ার (ইন্টিগ্রেশন) ক্ষেত্রে ‘বিশেষ সাফল্য’ দেখাতে পারবেন, তারা তিন বছর পরই নাগরিকত্ব চাইতে পারবেন। বিশেষ সাফল্যের মধ্যে রয়েছে- শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভালো ফল করা, কর্মক্ষেত্রে নিজেকে প্রমাণ করা, ভাষাগত দক্ষতা ও স্বেচ্ছাসেবামূলক কাজে পারদর্শিতা।

জার্মান ফেডারেল পরিসংখ্যান অফিস জানিয়েছে, ২০২২ সালে জার্মানির মোট জনসংখ্যার প্রায় এক চতুর্থাংশ মানুষের অভিবাসন সম্পর্কিত ইতিহাস রয়েছে।

ছাড়তে হবে না নিজ দেশের নাগরিকত্ব

জার্মানির পাসপোর্ট পেতে বা নাগরিক হতে হলে আগের মতো কোনো বিদেশিকে নিজ দেশের নাগরিকত্ব ছাড়তে হবে না। ২৭ জুন থেকে কার্যকর হচ্ছে এই সুবিধাটিও।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, জার্মানির নাগরিকত্ব অর্জনের সময় কোনো শর্ত পূরণ ছাড়াই আবেদনকারী তার আগের নাগরিকত্ব ধরে রাখতে পারবেন। ফলে জার্মানির পাসপোর্ট নিতে গিয়ে নিজ দেশের পাসপোর্ট ছাড়ার আক্ষেপও আর থাকবে না।

তবে আবেদনকারীর নিজ দেশ দ্বৈত নাগরিকত্ব রাখার সুযোগ দেয় কি না বা এ বিষয়ে জার্মান সরকারের সঙ্গে অন্য কোনো দেশের কোনো চুক্তি আছে কি না বিষয়টি তার ওপরও নির্ভর করবে।

সহজে নাগরিকত্ব অর্জন

আইনি এই সংস্কার নবজাতকদের বিশেষ সুবিধা দেবে৷ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ভবিষ্যতে জার্মানিতে বিদেশি মা-বাবার ঘরে জন্ম নেওয়া শিশু নিঃশর্তভাবে জার্মান নাগরিকত্ব পাবে। এমনকি, জার্মান বংশোদ্ভূত শিশুরাও এখন তাদের মা-বাবার নাগরিকত্ব ধরে রাখতে পারে, যদি তাদের মধ্যে একজন নিয়মিতভাবে অন্তত পাঁচ বছর জার্মানিতে বাস করেন।

‘অতিথি কর্মী প্রজন্মের’ জন্য যা থাকছে

অতিথি কর্মী প্রজন্মের সদস্যরা ভাষাগত দক্ষতার প্রমাণ দিতে পারলেই জার্মান নাগরিকত্ব পাবেন। জার্মান ন্যাচারালাইজেশন প্রক্রিয়ার পরীক্ষা দেয়ারও প্রয়োজন হবে না তাদের। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, তাদের প্রমাণ করতে হবে যে তারা নিত্যদিনের জীবনে জার্মান ভাষায় কথা বলতে পারেন। অতিথি কর্মীদের প্রতি বিশেষ সম্মান জানাতেই তাদের জন্য এই সহজ ব্যবস্থা নিয়েছে জার্মানি।

আইনি বিধিনিষেধ

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, জার্মান নাগরিকত্বের জন্য আবেদনকারী কোনো বিদেশির অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার রেকর্ড থাকতে পারবে না। তবে ছোটখাটো অপরাধ আমলে নেবে না কর্তৃপক্ষ। কোনো অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় কেউ যদি সর্বোচ্চ ৯০ দিনের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হয়ে থাকেন, তবে সাজাভোগের পর তিনি বা তারা নাগরিকত্ব চেয়ে আবেদনের যোগ্য হবেন।

তবে একটি ব্যতিক্রম থাকছে৷ যদি কোনো অভিবাসী ‘ইহুদিবিদ্বেষী, বর্ণবাদী বা অন্যান্য অমানবিক কাজের’ জন্য দোষী সাব্যস্ত হন, তাহলে তার সাজার মেয়াদ যা-ই হোক না কেন, তাকে আর নাগরিকত্ব দেওয়া হবে না।

নাগরিকত্ব পেতে হলে বিদেশিদের অবশ্যই নিজের এবং পরিবারের সদস্যদের ভরণ-পোষণের সামর্থ্য থাকতে হবে। কারণ, জার্মান সোশ্যাল কোডের দ্বিতীয় ও দ্বাদশ ধারা (এসজি টু ও টুয়েলভ) অনুযায়ী, তাদের সরকারি কল্যাণ ভাতায় যুক্ত করা হবে না।

আশ্রয়প্রার্থীদের মধ্যে যাদের আশ্রয় আবেদন বাতিল হয়েছে, কিন্তু নিরাপত্তার কারণে তাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে, অর্থাৎ ডুলডুং প্রক্রিয়ায় জার্মানিতে দীর্ঘসময় থাকতে পারছেন, তারা নাগরিকত্ব পাওয়ার যোগ্য হবেন না।